২রা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

নেছারাবাদের লাইব্রেরিগুলোয় চলছে নিষিদ্ধ গাইড বাণিজ্য

আপডেট: জানুয়ারি ২২, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

৩৬৫ ডেস্কঃ নেছারাবাদ (স্বরূপকাঠিতে) সিন্ডিকেটের মাধ্যমে চলছে অবৈধভাবে বই বানিজ্য লাইব্রেরির ব্যবসা, নির্ধারিত মূল্যের কমে বিক্রি করলে রয়েছে জরিমানার বিধান। গনপ্রজাতন্রী বাংলাদেশ সরকার নিষিদ্ধ থাকার সত্ত্ব চলছে অবৈধ ভাবে বই বিক্রি, স্বরুপকাঠীতে ইন্দুরহার বন্দরে, পপি লাইব্রেরী, মডান লাইব্রেরী, পপুলার সহ অন্যোন্য লাইব্রেরীতে এক সঙ্গে।

সরেজমিনে উপজেলার ইন্দেরহাট বাজারের বই লাব্রেরী ঘুরে দেখামেলে এমন চিত্র। লাইব্রেরীর ক্যাশ কাউন্টারেই সাজানো রয়েছে স্বরূপকাঠি বই লাইব্রেরী সমিতি উল্লেখ করে মূল্য তালিকার শতকরা কমিশন লিস্ট। রয়েছে তৃতীয় থেকে শুরু করে সকল শ্রেণীর সহায়িকা বই এক সেট করে, একের ভেতর সব নামে বিভিন্ন কম্পানীর প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী পর্যায়ের শ্রেণী সমূহের সহায়িকা বই। মূলত নোট বা গাইড বই সরকার নিষিদ্ধ করায় নাম পাল্টে সহায়িকা নামকরন করা হয়েছে এসব বইয়ের।

এ ব্যাপারে ইন্দেরহাট বাজারের পপি লাইব্রেরীর মালিক সাহিন বলেন, নোট, গাইড নিষিদ্ধ তাই সহায়িকা বিক্রি করি। শিক্ষকরা যদি ছাত্র/ছাত্রীদের ভাল ভাবে পড়ায় তাহলে এসব বইয়ের দরকার হয় না। কম্পানীর লোকজন শিক্ষকদের দিয়ে বই বিক্রির ব্যবস্থা করে তাই আমরা বিক্রি করি। এসময় লাইব্রেরীর সামনে রাস্তায় রাখা সদ্য আনা বইয়ের একটি বস্তা খুলে দেখাযায় বিক্রির জন্য নয় লেখা আছে, পাঞ্জেরী কম্পানীর ৯ম শ্রেনীর নোট বা গাইড সহায়িকা নামে।

এ বিষয়ে সাহিন বলেন, এগুলো কম্পানীর লোক আমার ঠিকানায় এনেছেন শিক্ষকদের দিয়ে তাদের বই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ধরানোর জন্য।

ঘটনাক্রমে ওই লাইব্রেরীর সামনে উপস্থিত হন সোহাগদল কেপিইউ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক মনোজ তিনি বলেন, ‘বিক্রির জন্য নয়’ বইটি মূলত কম্পানীর লোকজন আমাদের দেয়। আমরা বিভিন্ন কম্পানীর বই পড়ে যেটা ভালো সেটা কেনার জন্য শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দেই।

অভিবাবকদের অভিযোগ, সরকার বিনামূল্যে বই দিলেও আমাদের সহায়িকা বই কিনতে হচ্ছে এবং প্রাইভেট বাধ্যতা মূলক পড়াতে হচ্ছে যা খুবই ব্যয়বহুল এবং কষ্ট সাধ্য তার উপড়ে সিন্ডিকেট করে বইয়ে বাড়তি দাম নিচ্ছে দোকানীরা। বরিশালের তুলনায় প্রতিটি বইয়ে স্বরূপকাঠির ব্যবসায়িরা বেশি দাম নেয় বলে অভিযোগ তাদের।

এ ব্যপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে জানান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সরকার আব্দুল্লাহ বাবু।

এবিষয়ে স্বরূপকাঠি বই লাইব্রেরী সমিতির চার সদস্য একত্রিত হয়ে অঙ্গিকার করেন বইয়ের দামে যে সিন্ডিকেট ছিল তা তারা এখন থেকে ভেঙ্গে দিয়েছেন এবং সহায়িকা, নোট, গাইডসহ সরকার নিষিদ্ধ কোন প্রকার বই বিক্রি করা হবে না।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ