১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, মঙ্গলবার

ফিলিপাইন নাগরিকদের ধোঁকা দিতেই আরসিবিসির মামলা: আইনমন্ত্রী

আপডেট: মার্চ ১৪, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশন (আরসিবিসি) নিজ দেশের নাগরিকদের ধোঁকা দিতেই বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে মামলা করেছে বলে মন্তব্য করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।
বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে ঢাকায় নিযুক্ত জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমির সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, আরসিবিসির কর্মকর্তাদের আচরণটা আমার কাছে আইনি আচরণ বলে মনে হয়নি। আমার মনে হয় তারা নিজেদের দেশের মানুষকে ধোঁকা দেয়ার জন্য মামলাটি করেছে।
এর কারণস্বরূপ তিনি বলেন, ফিলিপাইন সরকার তাদের সিনেট পর্যন্ত হ্যাকিংয়ের কারণে বা আচরণে বা কন্ডাক্টের জন্য আরসিবিসিকে দায়ী করেছে।
সেখানে বাংলাদেশ আইনি পন্থায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা করলে সেটি মানহানিকর কিছু নয়, বলেন তিনি।
প্রসঙ্গত ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ফেডারেল রিজার্ভ সিস্টেমসের নিউইয়র্ক শাখায় থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার চুরি হয়ে যায়।
বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট ‘হ্যাকড’ করে এ অর্থ চুরি হয়। এর মধ্যে ২ কোটি ডলার যায় শ্রীলংকার একটি বাণিজ্যিক ব্যাংকে। ওই অর্থ দুদিনের মধ্যেই ফেরত আনতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ ব্যাংক।
অন্যদিকে ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনে যায় ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার।
রিজার্ভ চুরির ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে গত ১ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের সাউদার্ন ডিস্ট্রিক্ট কোর্টে মামলা করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। মামলায় ফিলিপাইনের ম্যানিলাভিত্তিক রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনকে (আরসিবিসি) প্রধান আসামি করা হয়েছে।
এর জবাবে আরসিবিসি মানহানির অভিযোগ এনে গত ৬ মার্চ ফিলিপাইনের সিভিল কোর্টে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিরুদ্ধে পাল্টা একটি মামলা করে।
অবশ্য আরসিবিসির মামলায় কোনো সমস্যা হবে না বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর ফজলে কবির। আরসিবিসির মামলাকে ‘সময়ক্ষেপণের কৌশল’ হিসেবেই দেখছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
এ ছাড়া হলি আর্টিজানের মামলার বিষয়ে জাপানের রাষ্ট্রদূতকে আপডেট দেয়া হয়েছে বলে জানান আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন