১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং, মঙ্গলবার

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাংচুর, শ্রমিক নেতার তান্ডবে ঝালকাঠি আ’লীগের ভাঙনের উপক্রম

আপডেট: এপ্রিল ২৫, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: শ্রমিক নেতার তান্ডবে ঝালকাঠি আ’লীগের ভাঙনের উপক্রম ঘটেছে। স্থানীয় যুবলীগ কার্যালয় গতরাতে সন্ত্রাসীরা ভাংচুর করেছে বলে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে স্থানীয়রা জানান, ঝালকাঠি কৃতীপাশা মোড় ইউনুস মিঞার দোকান সংলগ্ন এলাকায় ৬/৭ নং ওয়ার্ড যুবলীগের অফিস কার্যালয়টি গতকাল রাতে ৭ নং ওয়ার্ড কমিশনার হুমায়ুনের ভাই শ্রমিকলীগ নেতা ফারচুর ভারাটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে অফিস কার্যালয়ের আসবাব পত্র সহ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছবি ও আ’লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাংচুর করে।

এ সময় প্রতিবাদী উপস্থিত জনতাকে শাসিয়ে অস্ত্র হাতে হুমায়ুনের ভাই ফারচু সহ ভারাটে সন্ত্রাসীরা বলে তাদের ভাই হুমায়ুনের ছাড়া অন্য কারো অফিসের চিহ্ন পর্যন্ত রাখবে না। এ সময় ওই আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আমির হোসেন আমুর ছবিও ভেঙে ফেলে ফারচু ও তার ভারাটে সন্ত্রাসীরা।

সম্প্রতি চলতি বছরের ১৪ এপ্রিল রবিবার যুবলীগ নেতা রুবেল শরীফের মা ইন্তেকাল করায় তাদের অনুপস্থিতির সুযোগে কমিশনার হুমায়ুন ও তার ভাই ফারচু মোটরসাইকেলে ভারাটে সন্ত্রাসীদের নিয়ে যুবলীগ অফিস কার্যালয়ের মালিককে শাসিয়ে অফিস বন্ধ করে দেবার হুমকি ধামকি দেয়।

ঝালকাঠি যুবলীগের পরিচ্ছন্ন জনপ্রিয় নেতা হিসেবে সংগঠনে রুবেল শরীফের গ্রহনযোগ্যতা অধিক থাকায় একই সংগঠনের শ্রমিক লীগের নেতা ফারচু সহ কমিশনার হুমায়ুন ও তার বোন মহিলা কমিশনার সিমার নেতৃত্বে সন্ত্রাসী এহেন কর্মকান্ড পরিচালনা করে আসছে। তাদের প্রভাব বিস্তার করতে বলেও একাধিক এলাকাবাসী জানায়।

এর আগে কমিশনার ও তার ভাই ফারচু সন্ত্রাসীদের নিয়ে মটর সাইকেল মহড়া দিয়ে পৌরসভার বিভিন্ন এলাকায় তান্ডব চালায় বলেও অভিযোগ রয়েছে।

৭ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা আব্দুল হালিম চৌধুরী বলেন, ঝালকাঠি জেলা যুবলীগের নেতা কামাল শরীরের চাচাতো ভাই রুবেল শরীফের নেতৃত্বে এলাকার সকল উন্নয়ন মূলক কাজ পরিচালনা সহ আ’লীগের অধিকাংশ নেতা কর্মীরাই তার সাথে এক যোগে কাজ করাতে কমিশনারের ক্ষমতার অপব্যবহার প্রায় বন্ধ হওয়ার পর্যায় চলে যায়। সে ক্ষেত্রে তাদের ক্ষমতার পুনরাবৃত্তির জন্য এ ধরনের তান্ডব করাটা অস্বাভাবিক কিছু নয়। ক্ষমতার জন্য কত কি না করে অফিস ভাংচুর জমি দখল হত্যা হামলা মামলা এ তো পুরোনো ব্যাপার। তবে এ সব অপকর্মের দিকে হুমায়ুন কমিশনার ও তার ভাই ফারচু অনেক এগিয়ে থাকায় তাদের বিরুদ্ধে কোন কথা বলার সাহস এ মহল্লার কারোর ই নেই। মূখ খুললেই হুমকি ধামকি দেয়া সহ জমি জবর দখল করে অহেতুক হয়রানি করার ঘটনা অতীতে অনেক রয়েছে তাদের। সে কারনে তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয় না।

এ বিষয়ে যুবলীগ নেতা রুবেল শরীফ জানায় তিনি বিষয়টি জেনে থানা পুলিশ কে অবহিত করেছেন। এছাড়া দলীয় নেতাদের মাধ্যমে সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আমির হোসেন আমু এমপিকেও বিষয়টি জানানো হয়েছে বলে জানান৷

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন