১৯শে মে, ২০১৯ ইং, রবিবার

তাবলীগ জামাতের সা’দ-জুবায়ের গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি ও বেডিং ফেলে দিয়ে মসজিদে তালা

আপডেট: মে ১৫, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে মসজিদে অবস্থান নিয়ে তাবলীগ জামাতের সা’দ-জুবায়ের গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি ও বেডিং আসবাবপত্র ফেলে দিয়ে মসজিদে তালা লাগানোর ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার সকালে উপজেলার বেতডোবা বায়তুল করিম কোর্ট জামে মসজিদে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় মুসল্লিরা জানান, বিশ্ব মারকাজ দিল্লি নিজামউদ্দিন (সা’দ) অনুসারী ও মাওলানা জুবায়ের হোসেন ওলামা পরিষদ অনুসারী দুগ্রুপের মধ্যে মসজিদে অবস্থান করা নিয়ে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে দু’গ্রুপের মধ্যে হাতাহাতি ও বেডিং আসবাবপত্র ফেলে দেয়ার ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

দুই গ্রুপের হাতাহাতির ঘটনায় কালিহাতীতে উত্তেজনা বিরাজ করে। পরে সা’দ গ্রুপের অনুসারীরা থানায় গোলঘরে অবস্থান নেয়।

বিশ্ব মারকাজ দিল্লি নিজামউদ্দিন সা’দ গ্রুপের অনুসারী হুমায়ুন বাঙাল জানান, মঙ্গলবার বিকালে বায়তুল করিম কোর্ট জামে মসজিদে প্রবেশ করার সময় দুষ্ট প্রকৃতির কয়েকজন বাধা দেয়। এ সময় পুলিশ গিয়ে মসজিদে প্রবেশ করিয়ে আসে।

বুধবার সকালে কয়েকজন লোক এসে আমাদের তাবলীগ জামাতের সাথীদের মারধর করে বেডিং ও আসবাবপত্র মসজিদ থেকে ফেলে দেয়।

মাওলানা জুবায়ের হোসেন অনুসারী ওলামা পরিষদের থানা সূরার সাথী মোখলেছুর রহমান মারধরের বিষয়ে অস্বীকার করে বলেন, সা’দ গ্রুপ মঙ্গলবার মসজিদে প্রবেশ করেন পর্চায় কালিহাতী না থাকায় তাদের চলে যেতে বলা হয়। চলে যেতে অস্বীকার করায় তাদের বেডিং ও আসবাবপত্র বের করে দেয় স্থানীয় মুসল্লিরা।

কালিহাতী থানা ওসি মীর মোশারফ হোসেন জানান, দু’গ্রুপে মসজিদে থাকা নিয়ে তর্কবিতর্ক ও হতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

কালিহাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথ বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সা’দ গ্রুপের নির্দেশ থাকায় বুধবার দুপুরে দু’গ্রুপকে ডেকে শান্তির লক্ষে মীমাংসা করে দিয়ে বিশ্ব মারকাজ দিল্লি নিজামউদ্দিন (ছাদ) অনুসারীদের ওই মসজিদে থাকার জন্য বলা হয়েছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন