১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, বুধবার

শিরোনাম
শিববাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার ও সততা ষ্টোর উদ্বোধন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন নতুন আইন বিষয়ে মালিক-শ্রমিকদের নিয়ে বগুড়ায় মতবিনিময় সভা জাতীয় শ্রমিকলীগ কেন্দ্রিয় কমিটির নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দদের অভিনন্দন জানিয়ে বগুড়ায় আনন্দ র‌্যালী বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্থ সকলকে সরকারিভাবে সহায়তা করা হবে : গণপূর্ত মন্ত্রী বরিশাল জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মাইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় জিডি বানারীপাড়ায় ঘরের মেঝেতে কবর খুঁড়ে স্ত্রীকে জ্যান্ত কবর দেওয়ার চেষ্টা বরিশালে অস্ত্রসহ জলদস্যু গ্রেফতার লালমনিরহাটেকথিতভুয়াসাংবাদিক ৬৪০ পিচইয়াবাসহআটক ঠ্যালায় পড়ে নূর হোসেনের মায়ের কাছে ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা

রিফিউজি কলোনি এলাকায় মাদকের বিস্তার ও মাদক ব্যবসায়ী রুবেলের উত্থান

আপডেট: নভেম্বর ৩, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥জিরো থেকে হিরো হওয়া নগরীর দক্ষিন আলেকান্দার রুবেল ওরফে (নাক কাটা রুবেল)এখন আলেকান্দা এলাকার মুর্তিমান আতংক হয়ে দাড়িয়েছে। চাঁদাবাজি,হত্যা চেষ্টা,জমি দখলসহ এহেন কোন কাজ নেই যা এই সন্ত্রাসী রুবেল বাহিনী জড়িত নেই। সদর রোডের মুদি শাহীন, চৌমাথার বাবু হত্যা, আলেকান্দার জামাল হত্যা ঘটনার সাথে পরোক্ষভাবে জড়িত থাকলেও বিগত বিএনপি আমলে রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় সবকিছু থেকে অনায়াসেই পার পেয়ে যায়। মাদক মামলায় একাধিকবার জেরও খেটেছে এই রুবেল । এক পর্যায়ে দক্ষিন আলেকান্দা এলাকায় তার নেতৃত্বে গড়ে ওঠে একটি সন্ত্রাসী বাহিনী। এরা বিভিন্ন সময় সরকারি দপ্তরে টেন্ডারবাজির সাথে জড়িয়ে পড়ে। এক সময়ের বিএনপি ক্যাডার মেহেদীর সমর্থনপুষ্ট হয়ে বিভিন্ন মামলা থেকে পরিত্রান পেয়ে যায় রুবেল। ২০০৪ সালে মেহেদি র‌্যাবের ক্রসফায়ারে নিহত হলে সাঙ্গ পাঙ্গ নিয়ে গাঁ ঢাকা দেয় রুবেল। পরবর্তীতে সবশেষ সিটি নির্বাচনের পূর্বে পুনুরায় এলাকায় ফিরে তার বাহিনী নিয়ে শুরু করে মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজি। গৌরনদীর র‌্যাবের সোর্স দাবিদার পিটু দাস এর সহযোগিতায় এখনও চলছে তার মাদক ব্যবসা বলে জানায় এলাকাবাসি। একাজে তার সহযোগি হিসাবে কাজ করছে আলেকান্দা রিফিওজি কলোনি এলাকার মৃত আক্তার কসাইয়ের পুত্র এবং মাদক ব্যবসায়ী মিজানের শ্যালক তুহিন, একই এলাকার খালেক মিয়ার পুত্র কালু, জব্বার কসাইয়ের পুত্র বাপ্পি, বাদল খানের পুত্র সুমনসহ কতিপয় উঠতি সন্ত্রাসী,আনোয়ার হোসেন আন্নুর পুত্র লিয়ন এবং বল্লি আনসারের পুত্র বিপ্লবসহ কতিপয় সন্ত্রাসী। এদের মধ্যে ১ নভেম্বর সন্ধায় ২৩ নং ওয়ার্ড থেকে লিয়ন ও বিপ্লবকে এবং ৩ নভেম্বর সকালে বরিশাল ডিবি পুলিশ তুহিন এবং হাসান নামের দুইজনকে আটক করেছে। এরা শুধু রিফিওজি কলোনিই নয় এর আশে পাশের এলাকাতেও বিস্তার ঘটিয়েছে মাদকের। ফলে রিফিওজি কলোনি এলাকাটি পুরোপুরি এখন মাদকে ছেয়ে গেছে। উঠতি বয়সি যুবকরা সন্ধার পরেই মাদক সেবন করে চুরি,ছিনতাইয়ে জড়িয়ে পরছে। রুবেল বাহিনীর বিরুদ্ধে এ সংক্রান্ত একাধিক মামলা রয়েছে। কেউ কেউ একাধিকবার জেলও খেটেছে। তবে আইনের ফাঁক ফোকর দিয়ে বেরিয়ে এসে আবার সেই একই কাজে জড়িয়ে পরছে। ২০০২ সালে ১৪ নং ওয়ার্ডে বিলকিস মহল নামের এক ইঞ্জিনিয়ারের বাড়ির ওয়াল ভেঙ্গে দখলের চেষ্টা চালায়, সে সময় মেহেদির সেল্টারে থাকার কারনে মামলা হলেও তা থেকে পার পেয়ে যায় রুবেল। দুই সপ্তাহ পূর্বে কোতয়ালি থানার এসআই সমিরন নতুল্লাবাদ থেকে ডাকাতি করা সোনা কিনতে যাবার প্রাক্কালে রুবেলকে আটক করে। এ সময় রুবেলকে জিজ্ঞাসাবাদে মোটরসাইকেল চোরচক্রের সাথে সম্পৃক্ততার প্রমান পায়। রুবেলের মোবাইল ট্রেস করে মোটরসাইুকেল চোর চক্রের কয়েকজনকে আটক করে। ওই মামলায় বর্তমানেও বরিশালে জেলে রয়েছে। তার অবর্তমানে মাদক ব্যবসা পরিচালনা করছে রুবেলের বড় ভাই রাজন এবং তুহিন ও কালু। যেই মুহুর্তে প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোসনা করেছে, সেই সময় প্রশাসনের নাকের ডগায় অনেকটা প্রকাশ্যেই মাদক ব্যবসা চালিয়ে গেলেও প্রশাসন এদের টিকিটিও ধরতে পারছেনা। এলাকাবাসি নাম প্রকাশ না করার স্বাথের্ জীবিকার তাগিদে পটুয়াখালির দুমকি থেকে বরিশাল শহরের দক্ষিন আলেকান্দায় আশ্রয় নেয়া রিকসা চালক আলতাফ হোসেন পুত্র এই রুবেল এক সময় নুন আনতে পানতা ফুরালেও এখন তিনি দুর্দান্ত প্রতাপশালি ওই এলাকায়।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন