১৩ই নভেম্বর, ২০১৯ ইং, বুধবার

শিরোনাম
শিববাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার ও সততা ষ্টোর উদ্বোধন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন নতুন আইন বিষয়ে মালিক-শ্রমিকদের নিয়ে বগুড়ায় মতবিনিময় সভা জাতীয় শ্রমিকলীগ কেন্দ্রিয় কমিটির নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দদের অভিনন্দন জানিয়ে বগুড়ায় আনন্দ র‌্যালী বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্থ সকলকে সরকারিভাবে সহায়তা করা হবে : গণপূর্ত মন্ত্রী বরিশাল জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মাইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে থানায় জিডি বানারীপাড়ায় ঘরের মেঝেতে কবর খুঁড়ে স্ত্রীকে জ্যান্ত কবর দেওয়ার চেষ্টা বরিশালে অস্ত্রসহ জলদস্যু গ্রেফতার লালমনিরহাটেকথিতভুয়াসাংবাদিক ৬৪০ পিচইয়াবাসহআটক ঠ্যালায় পড়ে নূর হোসেনের মায়ের কাছে ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা

১৬ ডিসেম্বর প্রকাশ করা হবে রাজাকারের তালিকা

আপডেট: নভেম্বর ৮, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আগামী ১৬ ডিসেম্বরের আগেই সকল রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। এছাড়া বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ১৫ হাজার দুঃস্থ মুক্তিযোদ্ধাকে ঘর বাড়ি করে দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

rbt

শুক্রবার সকালে গাজীপুরের রথখোলায় বঙ্গতাজ মিলনায়তনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপ-কমিটির ঢাকা-ময়মনসিংহ বিভাগের মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি।

মতবিনিময় সভার প্রধান অতিথি ও উদ্বোধকের বক্তব্যে মন্ত্রী বলেন, আগামি জানুয়ারিতে মুক্তিযোদ্ধাদের পরিচয়পত্র দেওয়া হবে। তারা কী কী সুযোগ-সুবিধা পাবেন, তা পরিচয়পত্রের পেছনে লেখা থাকবে। আগামী জানুয়ারিতে মুক্তিযোদ্ধাদের সব কবরও একই ডিজাইনে করে দেওয়ার প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।

আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা নিয়ে অসন্তোষ আছে। এটি নিয়েও কাজ চলছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর বছর ২০২০ সালে সে অসন্তোষ দূর করা হবে। মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে ১৫ হাজার দুঃস্থ মুক্তিযোদ্ধাকে ঘর-বাড়িও করে দেওয়া হবে। এগুলোর প্রতিটি মূল্য হবে ১৫ লাখ টাকা।

চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযানের প্রসঙ্গে মন্ত্রিসভার জ্যেষ্ঠ এই মন্ত্রী বলেন, দুর্নীতির জন্য আমাদের প্রিয় সংগঠন ছাত্রলীগ, যুবলীগকে ছাড় দেওয়া হয়নি। জাতির কাছে এই মেসেজ পরিষ্কার— ঘরের লোকদের আমরা প্রথমে শায়েস্তা করেছি। সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত— অর্থাৎ সরকারের অধীন সব প্রতিষ্ঠান এবং ব্যবসায়ীসহ প্রতিটি স্তরে যারাই দুর্নীতিতে জড়িত, একে একে তাদের সবার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সভায় শেরপুর জেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজরুল ইসলাম হিরু বলেন, আমরা মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছি। আশা করি সরকার আমাদের অনুরোধ রাখবে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে দেশে মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করছেন আমলারা। মুক্তিযেদ্ধাদের সংগঠনের কার্যক্রম আমরা নিজেরাই পরিচালনা করতে চাই।

নেত্রকোনা জেলার সাবেক কমান্ডার মো. নুরূল আমিন বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আমরা স্বাধীনতা পেয়েছি। তিনি আমাদের আদর্শের পিতা, প্রধানমন্ত্রী আদর্শের বোন। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের আবেদন, মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বাড়ানো হোক এবং চাকরিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে মুক্তিযোদ্ধাদের সন্তানদের কোটা পুনর্বহাল করা হোক।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভা সঞ্চালনা করেন গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লা খান। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক উপকমিটির চেয়ারম্যান মো. রশিদুল আলম, সাবেক সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা কাজী মোজাম্মেল হক, গাজীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক সংসদ সদস্য মো. আখতারুজ্জামান, গাজীপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য মো. ইকবাল হোসেন সবুজসহ অন্যরা।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন