১৬ই জুলাই, ২০২০ ইং, বৃহস্পতিবার

নাজিরপুরে মাদরাসা ছাত্রীকে কাঁঠালিয়ায় আটকে রেখে ধর্ষন ও মুক্তিপন আদায়

আপডেট: মে ৩০, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

পিরোজপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের নাজিরপুরের এক মাদরাসা ছাত্রীকে ঝালকাঠীর কাঁঠালিয়ায় ৩দিন আটকে রেখে ধর্ষন ও মুক্তিপন আদায় করা হয়েছে। এ ঘটনার সথে জড়িত থাকার অভিযোগে এক নারী ও ৫ যুবককে আটক করেছে পুলিশ। ধর্ষণের স্বীকার ওই মাদরাসা ছাত্রীকে শুক্রবার (২৯মে) রাতে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। ভুক্তভোগী ওই মাদরাসা ছাত্রীর বাড়ি জেলার নাজিরপুর উপজেলার কলারদোয়ানিয়া ইউনিয়নের উত্তর গ্রামে। সে স্থাণীয় একটি মাদরাসার দশম শ্রেণীর ছাত্রী।
কাঠালিয়া থানা পুলিশের অফিসার ইন চার্জ পুলক চন্দ্র রায় জানান, শুক্রবার (২৯ মে) দুুপরে ওই মাদরাসা ছাত্রীকে ঝালকাঠী জেলা হাসাপাতালে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এক নারী সহ ১০ জনের নামে মামলা দায়ের হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে এক নারী সহ ৬ জনকে গ্রেফতার কার হয়েছে।
থানায় দায়ের হওয়া মামলা সূত্রে জানা গেছে, পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া উপজেলার রিমন হাওলাদার তানভীর নামের এক যুবকের সাথে ফেসবুকের মাধ্যমে ওই মাদরাসা ছাত্রীর পরিচয় হয়। গত মঙ্গলবার (২৬মে) প্রেমিক তানভীর ও তার বন্ধু রায়হান ওই মাদরাসা ছাত্রীর সাথে দেখা করতে মোটর সাইকেলে করে পিরোজপুর জেলার নাজিরপুরে যান। পরে ওই দিন মোটর সাইকেলে করে তারা পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। পথে ঝালকাঠীর কাঠালিয়া উপজেলার পটিয়াখাল ঘাট ইউনিয়ন পরিষদের মাঝের হল এলাকায় পৌঁছলে স্থাণীয় জনির নেতৃত্বে ৯/১০ যুবক তাদের ৩ জনকে আটক করে। এ সময় তারা তাদের সাথে থাকা মোবাইল ফোন ও টাকা ছিনিয়ে নেয়। তারপর মাদরাসা ছাত্রীকে জনি নামের এক যুবক ধর্ষন করে। পরে ওই মাদরাসা ছাত্রী সহ তার প্রেমিক তানভীর ও তার বন্ধু রায়হানকে স্থাণীয় হোসনেয়ারা বেগম নমের এক নারীর বাড়ির পৃথক রুমে ৩দিন আটকে রাখে। এ সময় তাদের অভিভাবকদের কাছে ফোন দিয়ে মুক্তিপন দাবী করা হয়। বৃহস্পতিবার (২৮মে) রাতে প্রেমিক তানভীরের পরিবার মুক্তিপনের জন্য চাওয়া ৩০ হাজার টাকা রিপন জমাদ্দারের হাতে তুলে দেন। এ সময় স্থাণীদের সহায়তায় কাঁঠালিয়া থানা পুলিশ তাকে আটক করেন। পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী হোসনেয়ারা বেগম নামের এক নারী ও ৫ যুবক সহ ৬ জনকে আটক করে পুলিশ।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন