৩০শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

শিরোনাম
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ল ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা : প্রধানমন্ত্রী জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটির সভা অনুষ্ঠিত মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে ধর্ষণ আইনের নীতিগত অনুমোদন মন্ত্রিসভায় হাতের স্পর্শ ছাড়াই পানি পান ! প্যাডেলট্যাপ কমিয়ে দিবে করোনাসহ অন্যান্য রোগ-জীবাণুর সংক্রমণ বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন *ভোলা জেলা পুলিশ ফুটবল টুর্নামেন্ট-২০২০ এর শুভ উদ্বোধন * জাতীয় সাংবাদিক সংস্থার কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটি পূর্ণগঠন  রিফাত শরীফ হত্যা, দশ আসামির ভাগ্য নির্ধারণ ৩০ সেপ্টেম্বর

প্রজনন মৌসুমের আগেই সাগর মোহনায় ইলিশ

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২০, ২০২০

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আশ্বিনের মূল প্রজনন মৌসুমকে সামনে রেখে দক্ষিণ উপক‚লের সাগর মোহনায় স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি ডিমওয়ালা মা ইলিশের বিচরণ ও আহরণ। এতে আগামী বছর উৎপাদন নিয়ে দুশ্চিন্তা বাড়ছে মৎস্য বিজ্ঞানীদের। আগামী ১৪ অক্টোবর থেকে আশ্বিনের বড় পূর্ণিমার আগে পরের ২২ দিন নিরাপদ প্রজননের লক্ষ্যে সারা দেশে ইলিশ আহরণ বন্ধ থাকবে।
গতবছরও ভাদ্রের মধ্যভাগের পরেই সাগর থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে মা ইলিশ উপক‚লসহ দক্ষিণাঞ্চলের অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে উঠে আসায় ব্যাপকহারে জালে ধরা পরে। তবে এবার এখনো সাগরের ইলিশ অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে উঠে না এলেও উপক‚লীয় মোহনায় ব্যাপক বিচরণের কারণে তা ধরা পড়ছে। মৎস্যজীবীদের মতে, এবার দেশের উত্তর-মধ্যাঞ্চলে বন্যা ও ভাদ্রের বড় অমাবশ্যায় ফুসে ওঠা সাগরের ভয়াল জোয়ারের প্লাবনে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল প্লাবিত হয়। সেসব পানি প্রবল বেগে সাগরে পতিত হবার কারণে ইলিশ এখনো অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে উঠে আসছে না।
তবে আসন্ন প্রজননকালের আগেই যদি উত্তর বঙ্গোপসাগর থেকে মা ইলিশ উপক‚ল হয়ে অভ্যন্তরীণ নদ-নদীতে উঠে আসতে শুরু করে, তবে তা আরো বড় বিপর্যয় সৃষ্টি করতে পারে বলে শঙ্কিত মৎস্য বিজ্ঞানীরা। মূল বর্ষা মৌসুমে কাক্সিক্ষত বৃষ্টি না হওয়ায় সাগরে পানির উষ্ণতা বৃদ্ধির ফলে মা ইলিশ আগাম উজানে ছুটে আসছে। এ ব্যাপারে ব্যাপক গবেষণার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।
বিজ্ঞানীদের সুপারিশ মেনেই সরকার আশ্বিনের প্রথম পূর্ণিমার আগের ৪ দিন ও পরের ১৭ দিনসহ মোট ২২ দিন ইলিশের মূল প্রজননকাল হিসেবে চিহ্নিত করে। এসময় উপকূলের ৭ হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকার মূল প্রজননস্থলে সবধরনের মাছের আহরণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছে। পাশাপাশি সারাদেশের নদ-নদীতে ইলিশ আহরণ, পরিবহন ও বিপণন নিষিদ্ধ থাকবে।
জাতীয় অর্থনীতিতে ইলিশের একক অবদান এখন ১%-এরও বেশি। আর মৎস্য খাতে অবদান প্রায় ১২-১৩%। বিগত দুই দশকে ইলিশ নিয়ে নানামুখী পদক্ষেপের ফলে এর উৎপাদন ১.৯৮ লাখ টন থেকে ইতোমধ্যে সোয়া ৫ লাখ টন অতিক্রম করেছে। মূল প্রজননকালে ২২ দিন আহরণ-বিপণন নিষিদ্ধ ও জাটকা আহরণ ও বিপণনে নিষেধাজ্ঞা অন্যতম প্রধান ভ‚মিকা পালন করছে।
মৎস্য বিজ্ঞানীদের মতে, সারা বিশ্বে উৎপাদন হ্রাস পেলেও বাংলাদেশে গত দেড় দশকে ইলিশ উৎপাদন প্রায় তিনগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে সারা বিশ্বে আহরিত ইলিশের প্রায় ৭৫% বাংলাদেশে, ১৫% ভারত ও মিয়ানমারে এবং থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, পাকিস্তান, ইরান ও ইরাকে অবশিষ্ট ইলিশ উৎপাদিত হয়ে থাকে। তবে গত বছর দেশে যে প্রায় সোয়া ৫ লাখ টন ইলিশ আহরিত হয়েছে, তার ৭০ ভাগই পাওয়া গেছে বরিশাল বিভাগের অভ্যন্তরীণ ও উপক‚লীয় জলাশয় থেকে। বরিশাল বিভাগে ইতোমধ্যে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে ১৫০% এরও বেশি।
গত দিন দশেক ধরেই মেঘনা, তেতুলিয়া, বলেশ্বর, আন্ধারমানিকসহ উপকূলের বিভিন্ন নদ-নদীর সাগর মোহনায় মা ইলিশের ব্যাপক বিচরণে জেলেদের জালে ধরাও পড়ছে। তবে এবার করোনা সঙ্কটে সারা দেশেই চাহিদা কিছুটা কম থাকায় জেলেরা দাম ভালো পায়নি। তবে গত সপ্তাহ থেকে ভারতে রফতানি শুরু হওয়ায় বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশের দাম বেড়েছে। বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা ও পিরোজপুরের ইলিশের মোকামগুলো সরব। সামনে নিষেধাজ্ঞা তাই আড়তদাররা জেলেদের খুব একটা দাদন বা আগাম টাকাও ছাড় করছে না। ফলে টাকার অভাবে ইলিশ আহরণে ততটা উৎসাহিত হচ্ছেন

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ