৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

গৌরনদীতে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর কর্মীদের রাতভর সংঘর্ষ: বোমা বিস্ফোরণ

আপডেট: জানুয়ারি ৩০, ২০২১

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশালের গৌরনদী পৌরসভা নির্বাচনের প্রচারণার শেষ দিনে বৃহস্পতিবার রাতে ৬ নম্বর ওয়ার্ডে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় কমপক্ষে ১৫টি বোমা বিস্ফোরণ হয়। হামলায় উভয়পক্ষের অন্তত ৫ জন আহত হয়। হামলার জন্য একে অপরকে দায়ী করেছে। আহত দুই জনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী, স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ জানায়, গৌরনদী পৌরসভা নির্বাচনে ৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমানের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সরকারি গৌরনদী কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি সুমন মাহমুদের মধ্যে চরম উত্তেজনা চলছিল। বৃহস্পতিবার রাত সোয়া ৯টায় দিকে শাওড়া এলাকায় আতিকুর রহমানের সমর্থক তারেক হোসনের সঙ্গে সুমন মাহমুদের সমর্থক মামুন হোসেনের কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে উভয় প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দফায় দফায় হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় কমপক্ষে ১৫ টি শক্তিশালী বোমার বিস্ফোরণ ঘটে। আতংকে মানুষ ছোটাছুটি করতে থাকে।

সুমন মাহমুদ অভিযোগ করে বলেন, আতিকুর রহমানের সমর্থকরা বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে শাওড়া মহল্লার শাহজাহান বেপারীর বাড়ির সামনে আমার নির্বাচনী কার্যালয়ে বোমা হামলা চালিয়ে অফিসের মধ্যে বসে থাকা সাগর মোল্লা (২২) ও জামিল হোসেনসহ (২৩) ৪ কর্মীকে মারধর করে আহত করেছে।

তবে আতিকুর রহমান এ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, সুমন মোল্লার সমর্থকরা বোমা হামলা চালিয়ে আমার সমর্থকদের ধাওয়া করে। এ সময় নাহার সিনেমা হলের সামনে আমার সমর্থক রিয়াজ মোল্লা (২৫) ও রাকিব হোসেনকে (২৬) পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করেছে। আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি/তদন্ত) মোঃ তৌহীদুজ্জামান ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, রাতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। তবে এ ঘটনায় কেউ কোন অভিযোগ করেন নাই।’

 

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ