৫ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

মরা খালে ফিরেছে প্রবাহ

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

বরিশালে সেচ সঙ্কটে ৩৭টি বোরো ব্লকের জমি তিন বছর অনাবাদি” থাকার খবর সম্প্রতি সময়ে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকের মাধ্যমে জানতে পেরে সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন সরকারের কৃষি মন্ত্রণালয় ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা। অবশেষে তারা প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা পেয়ে জনগুরুত্বপূর্ণ খাল খননের জন্য বৃহত একটি প্রকল্প গ্রহণ করেন। সেমতে অতিসম্প্রতি “৬৪ জেলার অভ্যন্তরস্থ ছোট নদী, খাল এবং জলাশয় পুনঃখনন (১ম পর্যায়)” প্রকল্পের আওতায় খাল খনন কাজ শুরু করা হয়। শনিবার সকালে পাউবো’র অফিস সূত্রে জানা গেছে, ওই প্রকল্পের মাধ্যমে জেলার প্রবেশদ্বার গৌরনদী উপজেলার পালরদী নদীর সংযোগস্থল আমানতগঞ্জ খালের মুখ থেকে ভুরঘাটা হয়ে গৌরনদীর মেদাকুল ও মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার মধ্যদিয়ে প্রবাহিত শশিকর পর্যন্ত প্রায় ১৯ কিলোমিটার খাল খননের কাজ শুরু করা হয়। ছয় কোটি ১৭ লাখ টাকা ব্যয়ে খাল পুনঃখননের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে গত এক মাস ধরে মাদারীপুর জেলার প্রথম শ্রেনীর ঠিকাদার মোঃ সাহাবুদ্দিন মোল্লার অধীনে খালের বিভিন্ন অংশে খনন কাজ চলমান রয়েছে।
সরেজমিনে ভুরঘাটা এলাকার বাসিন্দা ও সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ কামাল ফকির বলেন, জনগুরুত্বপূর্ণ এ খালের পানির ওপর প্রায় দু’শতাধিক বোরো ব্লকের হাজার-হাজার হেক্টর জমি নির্ভরশীল। তিনি আরও বলেন, খাল কাটার পর থেকে কোনদিনই পুনঃখনন করা হয়নি। ফলে একসময়ের খরা¯্রােতা খালটি পলিজমে মরে যাওয়ার উপক্রম হয়ে পানির অভাবে বোরো ব্লকগুলো বন্ধ হয়ে যায়। এ কারণে বোরো চাষের ওপর নির্ভরশীল এসব ব্লকের আওতাধীন কয়েক হাজার চাষী পরিবার চরম খাদ্য সংকটে পরেন। দীর্ঘদিন পরে হলেও বর্তমান সরকারের মহতি উদ্যোগে খালটি পুনঃখননের কাজ শুরু করা হয়েছে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে যতটুকু খাল পুনঃখনন করা হয়েছে তাতেই এখন এলাকাবাসী মরা খালে যৌবণ ফিরে আসার স্বপ্ন দেখছেন।সূত্রমতে, বন বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের চরম উদাসিনতার কারণে গত দেড় মাসেও খালের পাড়ের গাছগুলো অপসারন করা হয়নি। ফলে উল্লেখিত আড়াই কিলোমিটার অংশের খাল পুনঃখননের কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ রয়েছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ