২৫শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বুধবার

৭ শর্ত ঐক্যফ্রন্টের ব্যাপারে বিএনপির

আপডেট: জানুয়ারি ২৬, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ঐক্য অব্যাহত রাখতে ৭টি শর্ত আরোপ করছে বিএনপি। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পরবর্তী স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে এই সাত শর্তগুলো বিএনপির পক্ষ থেকে উপস্থাপন করা হবে বলে জানা গেছে। বিএনপির শীর্ষস্থানীয় একজন নেতা বলেছেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান দল হলো বিএনপি। কিন্তু দেখা যাচ্ছে ঐক্যফ্রন্টের অন্যদলগুলো বিএনপির উপর খবরদারি করছে। বৃহত্তর ঐক্যের জন্য আমরা এসব মুখ বুজে সহ্য করেছি। কিন্তু এখন আমরা এ ব্যাপারে আমাদের অবস্থান সুস্পষ্ট করতে চাই।’

জানা গেছে, ঐক্যফ্রন্টের অন্যসব নেতা ডা. জাফর উল্লাহ চৌধুরীর সাম্প্রতিক এক বক্তব্য নিয়ে বিএনপির মধ্যে প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘দুই বছরের জন্য তারেক জিয়া নেতৃত্ব থেকে সরে যাওয়া উচিৎ।’ গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের এই ট্রাস্টি বলেছেন, ‘এসময় তাকে ইমিরেটাস চেয়ারম্যান হিসেবেও রাখা যায়।’ আজ শনিবার ডা. জাফরুল্লাহর বক্তব্যের প্রতিবাদ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। তিনি বলেন ডা. জাফরুল্লাহর এই বক্তব্য তাঁর নিজস্ব, ব্যক্তিগত মতামত। তিনি বিএনপির কেউ নন।’ বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘ডা. জাফরুল্লাহর বক্তব্যে বিএনপির নেতাকর্মীরা ক্ষুব্ধ।

শুধু ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর বক্তব্য নয়, ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের কিছু বক্তব্যেও বিএনপি বিব্রত। বার বার তিনি যেভাবে ‘জামাত’ নিয়ে কথা বলছেন, তা অপ্রাসঙ্গিক বলেই মনে করছেন বিএনপির শীর্ষনেতারা। বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, ‘জামাতের সঙ্গে বিএনপি থাকবে কি থাকবে না এই সিদ্ধান্ত তো বিএনপি নেবে, অন্য কারো কথায় তো আমরা সিদ্দান্ত নেব না।’ এরকম নানা ইস্যুতে বিতর্ক সৃষ্টি হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বিএনপি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সামনে ৭ দফা শর্ত উপস্থাপন করেছে। এই শর্তগুলো হলো-

১. জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট অন্যদলের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে নাক গলাবে না। কোন দলের কে নেতা হেবেন, কে অবসরে যাবেন সেসব ঐক্যফ্রন্টের বিষয় নয়।

২. ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক এবং সমন্বয়কারী ছাড়া ঐক্যফ্রন্টের বিষয় নিয়ে অন্য কেউ কোনো আনুষ্ঠানিক বক্তৃতা বা বিবৃতি দেবে না।

৩. ঐক্যফ্রন্টের বাইরে যদি কোন রাজনৈতিক দল কোন জোট করে তাহলে তা নিয়ে প্রশ্ন উথাপন করা যাবে না। যেমন, ঐক্যফ্রন্ট থাকা বিএনপি ২০ দলীয় জোটে রয়েছে। যেটি সম্পূর্ণ আলাদা জোট। ঐ জোটের সঙ্গে যেহেতু ঐক্যফ্রন্টের কোন সম্পর্ক নেই তা ঐ জোট নিয়ে প্রশ্ন তোলা এবং কথা বলা যাবে না।

৪. ঐক্যফ্রন্ট যেহেতু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখান করেছে, তাই ঐ নির্বাচনে জয়ী ঐক্যফ্রন্টের শপথ নেওয়া এবং সংসদে যোগ দেওয়া নিয়ে কোন পরামর্শ দেওয়া যাবে না।

৫. ঐক্যফ্রন্টকে একটি সুনির্দিষ্ট কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করে ধাপে ধাপে আন্দোলনের কর্মসূচী গ্রহণ করতে হবে।

৬. ঐক্যফ্রন্টের কোনো দল আলাদা ভাবে সরকারের সঙ্গে সংলাপ বা শুভেচ্ছা বিনিময় করতে পারবে না।

৭. ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা হিসেবে বেগম খালেদা জিয়াকে স্বীকৃতি দিতে হবে। তার মুক্তির দাবী সমান আনতে হবে।

বিএনপি বলছে, এই শর্ত পূরণ না করলে বিএনপি ঐক্যফ্রন্টে থাকার বিষয়টি নতুন করে ভাববে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ