২৬শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

কাউকে কিছু বললে মেরে লাশ হাতিরঝিলে ফেলে দেব

আপডেট: ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

নারী সহকর্মীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একুশে টেলিভিশনের (ইটিভি) প্রধান প্রতিবেদক এম এম সেকেন্দারকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-২। রোববার (৩ ফেব্রুয়ারি) দিবাগত রাতে রাজধানীর বনশ্রীর বাসা থেকে সেকান্দারকে আটক করা হয়। পরে তাকে হাতিরঝিল থানায় সোপর্দ করা হয়।

এর আগে ভুক্তভোগী ওই নারী হাতিরঝিল থানায় সেকেন্দারের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

সোমবার (৪ ফেব্রুয়ারি) হাতিরঝিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফজলুল হক বলেন, এক নারী সাংবাদিক থানায় সেকান্দারের বিরুদ্ধে এজাহার দায়ের করেন। ওই অভিযোগে সেকান্দারকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মামলা করার আগে এই নারী সাংবাদিক ইটিভি কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। ২৮ জানুয়ারি চ্যানেলটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক বরাবর এম এম সেকান্দার কর্তৃক নারী সহকর্মীকে যৌন হয়রানি শিরোনামে তিন পৃষ্ঠার লিখিত অভিযোগপত্র জমা দিয়েছেন।

ওই নারীর অভিযোগ, তাকে দীর্ঘদিন ধরে সেকান্দার যৌন হয়রানি করে আসছেন। বিষয়টি নিয়ে কয়েকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলতে চাইলেও তিনি তাদের কাছে পাত্তা পাননি।

বিষয়টি নিয়ে অভিযোগকারী ওই নারী সাংবাদিক বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এম এম সেকান্দার আমাকে হয়রানি করে আসছেন। তিনি প্রকাশ্যে শ্লীলতাহানি করেছে। সিসি ফুটেজ আছে, অনেক সাক্ষীও রয়েছে।

গত ২৭ জানুয়ারি একটি ফাস্টফুডের দোকানে ডেকে তাকে জাপটে ধরে তার শরীরে হাত দিয়ে যৌন হয়রানি ও শ্লীলতাহানি করেন। এ বিষয়ে কাউকে কিছু বললে মেরে বস্তায় ভরে লাশ হাতিরঝিলে ফেলে দেবে বলেও হুমকি দেন।

একুশে টিভির এমডি বরাবর একটি অভিযোগ দিলে সেকান্দার বিষয়টি জেনে যান এবং তাকে (ওই নারীকে) রুমে ডেকে কুরুচিপূর্ণ ও বাজে মন্তব্য করেন।

এ বিষয়ে সেকান্দারের স্ত্রী নিলুফার ইয়াসমীন সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছেন, ‘তার স্বামীকে পরিকল্পিতভাবে ফাঁসানো হচ্ছে।’

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ