১৫ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, শুক্রবার

নারায়ণগঞ্জ নিয়ে ষড়যন্ত্র হচ্ছে -শামীম ওসমান

আপডেট: আগস্ট ৩০, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

রাশদেুল কবরি অনু নারায়ণগঞ্জ::স্বাধীনতার জন্য আমাদের অনেক মূল্য দিতে হয়েছে। স্বাধীনতার জন্য আমাদের ৩০ লক্ষ্য মানুষের জীবন দিতে হয়েছে। ২লক্ষ্য মা বোনের সম্ভ্রব দিতে হয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতার তিন বছরের মধ্যে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ¯্রষ্টা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছে। শুধু তাকেই নয়। তার পুরো পরিবারকে হত্যা করা হয়েছে। আল্লাহর অশেষ রহমতে তার দুই মেয়ে বেচে গিয়েছিলো। শেখ হাসিনা এবং শেখ রেহানা। যার কারনে পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচার হয়েছিলো। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশে^র দরবারে বাংলাদেশ এখন মাথা উচু করে দাড়াতে পারছে যার নেতৃৃৃত্বের কারণে। কিন্তু আমার কাছে কেনো যেনো মনে হয় চারিদিকে ষড়যন্ত্রের একটু গন্ধ পাচ্ছি। বাংলাদেশের রাজনিতিতেও ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছি। যাদের জনগণের ভিত্তি নাই তাদের ষড়যন্ত্রের কোন ভিত্তি নাই। ২০০১ সালের ১৬ জুন আমার ওপর যখন বোমা হামলা করা হয়েছিলো। সেদিন আমার দলের ২০জন নেতাকর্মী মারা গিয়েছিলো। আমি জানতাম না রক্ত এতো গরম হয়। বোমা হামলায় আহত হয়ে আমি জ্ঞান হারিয়ে রক্তের ওপর শুয়ে ছিলাম। সেদিন বুঝেছি রক্ত এতো গরম হয়। সেদিন সাংবাদিকরা আমাকে কিছু বলার জন্য বলছিলেন। সেই সময় আমি শুধু বলেছিলাম শেখ হাসিনাকে বাচান। সেদিন আমার এই বক্তব্যের পরে তৎকালিন সরকার বিএনপি এবং কিছু মিডিয়া মন্তব্য করেছিলো শেখ হাসিনার নিরাপত্তা আইন পাশ করানোর জন্য এই বোম্ব ব্লাষ্ট আমিই করিয়েছিলাম। কিন্তু ইতিহাস বলে ২১ শে আগষ্টের গ্রেনেড হামলা আমাদের কথা সত্য প্রকাশ করেছে। শুক্রবার (৩০ আগষ্ট) বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জের কদমতলী এলাকায় ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে থানা আওয়ামীলীগ কর্তৃক আয়োজিত এক শোক সভায় নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমান এ কথাগুলো বলেন। এসময় তিনি সিদ্ধিরগঞ্জের আওয়ামীলীগের নেতৃবৃৃৃৃন্দদের উদ্দেশে বলেন, আপনারা সজাগ থাকেন। ঐক্যবদ্ধ থাকেন। বাংলাদেশে মনে হয় এখন সবাই আওয়ামীলীগ করে। আওয়ামীলীগের বাইরে কেউই নাই। আর যারা সত্যিকারের আওয়ামীলীগ করে তারা মনে হয় এখন আর আওয়ামীগ না অন্য কিছু করে। দেশেও চলছে নারায়ণগঞ্জে বিশেষভাবে চলছে। অসাধু লোক সাধু সাজার চেষ্টা করছে। অমুক্তিযোদ্ধা মুক্তিযোদ্ধা সাজার চেষ্টা করছে। অরাজনৈতিক ব্যক্তি রাজনীতি করার চেষ্টা করে। জামাতের সাথে আতাতকারীরা আওয়ামীলীগের সামনের সারির নেতা হওয়ার চেষ্টা করে। অনেকে আবার ষড়যন্ত্র করে সিদ্ধিরগঞ্জের আওয়ামীলীগকে খতম করার জন্য আমি যাদের নাম জানিনা। যারা আওয়ামীলীগের নিবেদিত প্র্রাণ, স্থাণীয় ব্যবসায়ি তাদেরকে আসামী করা হয়। তাও আবার হত্যা মামলা। ঘটনা ঘটে ১নাম্বার ওয়ার্ডে। কিন্তু আসামী করা হলো পুরো ১০টি ওয়ার্ডের নেতাকর্মী,ব্যবসায়িদের। আমি বুঝতেছি নারায়ণগঞ্জে একটা ষড়যন্ত্র হচ্ছে। যারা আমাদের দলের নেতাকর্মীদের চরিত্র হনন করার চেষ্টা করছেন। যারা আমাদের নেতাকর্মীদেরকে বিভিন্ন মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির চেষ্টা করছেন তাদের উদ্দেশ্যে বলতেছি, শান্ত নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত করার চেষ্টা করবেন না। যদি আমার নেতাকর্মীদেরকে নিয়ে কোন ষড়যন্ত্রের চেষ্টা করা হয় তাহলে, যদি শেখ হাসিনার কর্মীদেরকে নিয়ে কোন ষড়যন্ত্র করা হয় তাহলে নারায়ণগঞ্জ এবার দাউ দাউ করে জ¦লে উঠবে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ