১৮ই জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, সোমবার

জাতীয় কবি কাজী নজরুল গোন্ডেন এ্যাওয়ার্ড পেলেন শিক্ষক আশীস কুমার

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

পিরোজপুর প্রতিনিধিঃ জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড-২০১৯ পেলেন কাউখালীর শিক্ষক আশীস কুমার মিস্ত্রী। আঞ্চলিক ভাষা ও বাঙ্গালী সংস্কৃতি পরিষদের আয়োজনে গত শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ঢাকা সেগুনবাগিচা কেন্দ্রীয় কচিকাচা মিলনায়তনে জাতীয় কবি নজরুল ইসলামের ৪৩তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে শিক্ষা ক্ষেত্রে বিষেশ অবদানের স্বীকৃতিসরূপ শেখেরহাট রোকেয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় এর প্রধান শিক্ষক আশীস কুমার মিস্ত্রীকে এ সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়। সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অঞ্চলিক ভাষা ও বাঙ্গলী সংস্কৃত পরিষদের উপদেষ্টা আতাউল্লাহ খান। প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের আপীল বিভাগের বিচারপতি মোঃ ছিদ্দিকুর রহমান মিয়া। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সাবেক সচিব ডঃ জকরিয়া। অনুষ্ঠান উদ্ধোদন করেন অর্থমন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব পীরজাদা শহিদুল হারুন। পদক প্রাপ্ত গুনি শিক্ষক আশীস কুমার মিস্ত্রী তার অনুভুতি ব্যক্ত করেতে গিয়ে বলেন, যারা এরকম একটি সুন্দর অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন তাদের কাছে আমি চির কৃতজ্ঞ। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম গোল্ডেন এ্যাওয়ার্ড-২০১৯ এ সম্মাননা আমার জীবনের অনেক বড় পাওনা।
শিক্ষক আশীস কুমার মিস্ত্রী ১৯৬৮ সালে পিরোজপুর জেলার স্বরূপকাঠী উপজেলার পাটিকলেবাড়ী গ্রামে এক মধ্যবৃত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমানে তিনি কাউখালী উপজেলার বলভদ্রপুর গ্রামে বসবাস করছেন। শিক্ষক আশীস কুমার ১৯৮৫ সালে স্বরূপকাঠী উপজেলার বাটনাতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে কৃতিত্বের সাথে এস,এস, সি পাশ করেন। ১৯৮৭ সালে কাউখালী মহাবিদ্যালয় থেকে এইচ,এসসি ও ১৯৮৯ সালে বি.কম পাশ করেন। এরপর তিনি উচ্চতর ডিগ্রীর জন্য বরিশাল বিএম কলেজে ভর্তি হন। ১৯৯৮ সালে তিনি বরিশাল বি.এম কলেজ থেকে এম,এ পাশ করেন। তিনি লেখাপড়া শেষে ১৯৯৩ সালে স্বরূপকাঠী উপজেলার এগার গ্রাম সম্মলনী মাধ্যমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক হিসাবে শিক্ষাগত পেশা শুরু করেন। এরপর তিনি ঝালকাঠী সদরে শেখেরহাট রোকেয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ১৯৯৭ সহকারী প্রধান শিক্ষক হিসাবে যোগদান করেন। এরপর ২০১৩ সালে তিনি একই বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। শিক্ষার মান দিক থেকে তিনি তার বিদ্যালয়টিতে ব্যপক পরিবর্তন এনেছেন। শিক্ষকদের আন্তরিক প্রচেষ্টায় বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা জে,এসসি ও এস,এস,সিতে বিগত দিনের চেয়ে অনেক ভাল ফলাফল করছে।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ