২৮শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার

আমি চাইলেই পদত্যাগ করতে পারি না: জাবি ভিসি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন

আন্দোলনকারীদের পদত্যাগ দাবি প্রশ্নে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যায়ের ভিসি অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টেকহোল্ডার তো শুধু তারাই নন। এর বাইরেও অনেকেই আছেন। যদি সবাই মনে করেন আমি নৈতিক অবস্থান হারিয়েছে, তাহলে সেটা ভিন্ন কথা। ভিসি হিসেবে আমার এটুকু সুযোগ আছে নিজেকে পরিচ্ছন্ন করার। সেটা আমি ইউজিসিকে বলবো, যেন তারা একটা তদন্ত করেন। তদন্ত চলাকালীন সময়ে আমাকে দায়িত্ব ছেড়ে দিতে হবে কিনা তা আমি বলতে পারি না। সেটা বলবেন মহামান্য।

তিনি আরও বলেন, আন্দোলনকারীরা পদত্যাগ দাবি করেছেন। কিন্তু আমি চাইলেই তো আর পদত্যাগ করতে পারি না। তাদের পদত্যাগের দাবিতেও যদি উর্ধতন কর্তৃপক্ষ আমাকে এখানে থাকার নির্দেশ দেন তাহলে আমাকে গালমন্দ খেয়েও থাকতে হবে। আলোচনার দ্বার আর খোলা নেই। এই অর্থে যে, তারা আর আলোচনা চাইছেন না।

এদিকে, আসন্ন ভর্তি পরীক্ষার হল পরিদর্শনের ক্ষেত্রে ভিসিকে প্রত্যাখান করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আন্দোলনকারী শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গতকাল দীর্ঘ তিন ঘণ্টা আলোচনা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানবিকী অনুষদের সামনে রাত ৮টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন করে তারা এ কথা জানান।

সংবাদ সম্মেলনে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয়ের সঞ্চালনায় ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারের মুখপাত্র অধ্যাপক রায়হান রাইন বলেন, টেন্ডার ছিনতাইয়ের ঘটনার বিচার না করা, নির্দিষ্ট কিছু কোম্পানিকে কাজ পাইয়ে দেয়া, কমিশন কেলেঙ্কারি, চাঁদা দাবির ঘটনাকে পাঁচ মাস ধরে গোপন রাখা, ৮ ও ৯ই আগস্টের বৈঠকের ব্যাপারে মিথ্যাচার করা, টাকা ভাগ বাটোয়ারার ঘটনায় সরাসরি যুক্তদের স্বীকারোক্তি- এসব প্রেক্ষিতে আমরা মনে করি তার ভিসি নিজের পদে থাকার কোন নৈতিক অধিকার নেই। আমরা তাকে পদত্যাগ করার দাবি জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, ভিসি সসম্মানে পদত্যাগ করার জন্য আমরা তাকে পহেলা অক্টোবর পর্যন্ত সময় দিচ্ছি। এই সময়ের মধ্যে পদত্যাগ না করলে আমরা কঠোর কর্মসূচিতে যাবো। এর মধ্যে আমাদের নিয়মতান্ত্রিক কর্মসূচি থাকবে। আজ সাড়ে ১২টায় সুষ্ঠু তদন্ত ও পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করবে তারা।

  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
আমাদের চ্যানেল ৩৬৫ ফেসবুক লাইক পেজ